হোম কৃষি তিন বছরে তেলের আমদানি ৪০ ভাগ কমিয়ে আনা সম্ভব

তিন বছরে তেলের আমদানি ৪০ ভাগ কমিয়ে আনা সম্ভব

প্রতিবেদক Juboraj Faisal
0 মন্তব্য

প্রচলিত শস্য বিন্যাসে আধুনিক উফশী ধানের জাতের পাশাপাশি তৈল ফসলসহ অন্যান্য ক্যাশ ক্রপ বা দামি ফসল সন্নিবেশের ক্ষেত্রে কৃষকদের সহযোগিতা করতে পরস্পর যৌথভাবে কাজ করবেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) বিজ্ঞানীরা

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রশিক্ষণ কমপ্লেক্সের সভাকক্ষে ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের রাইস ফার্মিং সিস্টেমস বিভাগ আয়োজিত শস্য বিন্যাস উন্নয়ন ও ফসলের জাত নির্বাচন পর্যালোচনা কর্মশালায় এ কথা জানানো হয়।

ব্রির পরিচালক (গবেষণা) ড. মো. খালেকুজ্জামানের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর। সম্মানিত অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. দেবাশীষ সরকার।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রির পরিচালক (প্রশাসন ও সাধারণ পরিচর্যা) ড. মো. আবু বকর ছিদ্দিক, পরিচালক (তৈলবীজ গবেষণা কেন্দ্র) ড. মো. আবদুল লতিফ আকন্দ ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও যোগাযোগ) ড. ফেরদৌসি ইসলাম। কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্রির রাইস ফার্মিং সিস্টেম বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও বিভাগীয় প্রধান ড. মুহম্মদ নাসিম।

কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্রির রাইস ফার্মিং সিস্টেম বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. ইব্রাহিম ও বারির সরেজমিন গবেষণা বিভাগের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মাজহারুল আনোয়ার। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন শেষে উভয় গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞানীদের সমন্বয়ে দেশের ১৪টি অঞ্চলের শস্য বিন্যাসে আরও কী কী ফসল অন্তর্ভুক্ত করা যায়, সে বিষয়ে সাতটি দলগত কর্মপরিকল্পনা উপস্থাপন করা হয়।

সম্পর্কিত আরও খবর

আপনার মতামত দিন